Wednesday, September 4th, 2019

Astro Research Centre

সমাজে বিবাহে (যোটক বিচার ), রাজ যোটক, মাঙ্গলিক দোষ, অসবর্ন বিবাহ, নারী জ্যোতিষ, 7ম ভাবে রাহু, কেতু, শনি, মঙ্গল অশুভ যোগ, অস্তকুট

সমাজে বিবাহে (যোটক বিচার ), রাজ যোটক, মাঙ্গলিক  দোষ, অসবর্ন বিবাহ, নারী জ্যোতিষ, 7ম ভাবে রাহু, কেতু, শনি, মঙ্গল অশুভ যোগ, অস্তকুট

যোটক বিচার' নাড়ীবেধ বর্ণকুট রাজযোটক মাঙ্গলিক ও অসবর্নবিবাহ

দ্বাদশ রাশির বিবাহ যোগ, মেষ, বৃষ, মিথুন, কর্কট, সিংহ, কন্যা, তুলা, বৃশ্চিক, ধনু, মকর, কুম্ভ, রাশির মিল কেমন হবে

বিবাহে পাপগ্রহের প্রভাব কি

দাম্পত্য সুখের ভিত্তি হ’ল স্বামী স্ত্রীর মধ্যে পারস্পরিক প্রেম-প্রীতি ভালবাসা-বোঝাপড়া। উভয়ের মনোবৃত্তির মিল হলে দাম্পত্য জীবনে সুখের অভাব ঘটার কথা নয়। সেই কারণেই বিখ্যাত অগলাস্তোত্রের প্রার্থনা –
'ভার্য্যাং মনোরমাং দেহি মনোবৃত্ত্যানুসারিণীম্।‘

নারীদের মনেও নিশ্চয়ই অনুরূপ প্রার্থনা জাগে।
কিন্তু বাস্তবে সকলের জীবনে এই প্রার্থনা পূরণ হয় না। বিবাহের, এমন কি প্রেমজ বিবাহের অনতিকাল পরেই ব্যক্তিত্বের সংঘাত বাধে। পতি ও পত্নীর মধ্যে মানসিক দূরত্ব সৃষ্টি হয় ও তা অনেক সময় উভয়ের মধ্যে দুস্তর ব্যবধানে পরিণত হয়, সুখের পরিবর্তে আসে অশান্তি, কোন কোন সময় বিচ্ছেদ।

বিবাহিত জীবনের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধির জন্য প্রয়োজন উত্তম পাত্র পাত্রীর মিলন। পাত্র পাত্রীর উত্তমমিলন বিচার করতে জ্যোতিষ শাস্ত্রে যোটক বিচার এক গুরুত্বপূর্ণ পথ।

যোটক বিচার বলতে ঠিক কি বুঝায় ?

বিবাহের পূর্বে বর ও কন্যার পরস্পরের জন্মরাশি, জন্মনক্ষত্র ও রাশ্যাধিপ গ্রহদি থেকে, যে শুভাশুভ ফল বিচার করা যায়, তাকেই যোটক বিচার বলে। যোটক বিচার অষ্টপ্রকারে বিভক্ত।
যোটক বিচার আট প্রকার কুট বা গুণের সমন্বয়- যথা বর্ণকুট, বশ্যকুট, তারাকুট, যোনিকুট, গ্রহমৈত্রীকুট, গণমৈত্রিকুট, রাশি কুট ও নাড়ীকুট ।

প্রতিটি কূটের একটি নির্দিষ্ট গুনমানের সংখ্যা থাকে যেমন বর্ণকুট1, বশ্যকুট2, তারাকুট3, যোনিকুট4, গ্রহমৈত্রীকুট5, গণমৈত্রিকুট6, রাশি কুট7 ও নাড়ীকুট8| এভাবে সবকটি কুটের সংখ্যা যোগ করলে গিয়ে দাড়ায় 36
এই ৩৬ গুণের মধ্যে মিলনে কত গুণ পাওয়া যাচ্ছে সেটাই মূল কথা।
এই বিষয়ে একটি কথা মনে রাখতে হবে ৩৬ গুণের মধ্যে ১৮ গুণের কম হলে তা যোটক মিলনে শুভ ফলপ্রদ হবে না।

১৮ গুণের বেশি হলে বিবাহিত জীবনে সুখ ও শান্তি লাভ সম্ভব।

34 থেকে 36 টি গুণের মিলন হলে তাকে 'রাজযোটক' বলে।

পূর্বে বর্ণিত অষ্টকুট নিয়ে সংক্ষিপ্ত আকারে কিছু তথ্য দেওয়া হল :-

1. বর্ণকুট :

বর্ণ কাকে বলে বা বর্ণ কি ?
জ্যোতিষশাস্ত্রে মেষ, বৃষ, মিথুন, ইত্যাদি যে বারোটি রাশি ব্যাবহার করা হয় তাদের বিপ্র, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য, শুদ্র বর্ণে বিভক্ত করা হয়েছে।যথা যে ব্যক্তিগনের জন্ম কর্কট, মীন, বা বৃশ্চিক রাশিতে তাঁদের বর্ণ বিপ্র। এইভাবে যাঁদের জন্ম সিংহ, তুলা বা ধনু রাশিতে তাঁদের বর্ণ ক্ষত্রিয়। যোটক বিচারের নিয়মে শুদ্র বর্ণের থেকে বৈশ্য বর্ণ শ্রেষ্ঠ, বৈশ্য বর্ণের থেকে ক্ষত্রিয় বর্ণ শ্রেষ্ঠ, আবার ক্ষত্রিয় বর্ণের থেকে বিপ্র বর্ণ শ্রেষ্ঠ।
বর্ণ ফলমে বলা হয়েছে যে-
"ক্ষাত্র-বিট্-শুদ্র-বিপ্রাঃ স্যুঃ ক্রমান্মেষাদি-রাশয়ঃ।
তত্র বর্ণাধিকা কন্যা নৈবোদ্বাহ্যা কদাচন" ।।
অর্থাৎ “বরের বর্ণাপেক্ষা কন্যার বর্ণ শ্রেষ্ঠ হলে, সেই কন্যাকে কদাচ বিবাহ করিবেনা”।

করলে কি হবে ?

" বর্ণশ্রেষ্ঠা তু যা নারী বর্ণহীনস্তু যাঃ পুমান।
বিবাহং যদি কুরব্বীত তস্য ভর্তা বিনশ্যতি "।।
উচ্চ বর্নের পাত্রীর সাথে নিম্ন বর্ণের পাত্রের বিবাহ অশুভ। এতে দাম্পত্য অসন্তোষ, অকাল বৈধব্য, শারীরিক অসুস্থতা, সন্তানের কারনে মনকষ্ট ভোগ করতে হয়।

2. বশ্যকূট্ :

“ মিথুন, কন্যা, তুলা, কুম্ভ, ও ধনুর পূর্বাদ্ধ, যদি বরের রাশি হয় এবং মেষ, বৃষ, কর্কট, ইত্যাদি যদি কন্যার রাশি হয় সেই কন্যা বরের বশীভূত হয়”।

এই ভাবে কয়েকটি জন্ম চান্দ্র রাশিকে অন্য কয়েকটি জন্ম চান্দ্র রাশির বশ্য ধরা হয়েছে এবং বিপরীতে বিপরীত ফল বলা হয়েছে।

"এবং বশ্যসমাযোগে দম্পত্যোঃ প্রীতিরূত্তমা।
বশ্যাভাবেহপি দম্পত্যো্রবিবাহঃ কলহ-প্রদঃ।।"

পাত্র ও পাত্রীর রাশি দ্বিপদ চতুস্পদ প্রভৃতি শক্র মিত্রের প্রভাবে দাম্পত্য জীবনে কলহ, বিবাদ, মামলা, মকদ্দমা এমনকি দাম্পত্য বিচ্ছেদ পর্যন্ত ঘটে যেতে পারে। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বিবাহ ঘটায় বশ্যকুট বিচারের অশুভ প্রভাবের ফলে।

3. তারাকুট : পাত্র পাত্রীর জন্মনক্ষত্রের গরমিলের প্রভাবে বিবাহিত জীবনের সুখ, দুঃখ নির্ধারিত হয়ে থাকে। তারা কুটের শুভ প্রভাবে বিবাহের পর গৃহে ভাগ্যলক্ষ্মীর কৃপা বর্ষণ হয়, আর অশুভ প্রভাবে দাম্পত্য অসন্তোষ সহ দুঃখ, কষ্ট, শোক, জরা, ব্যাধি, দৈন্য ও দারিদ্র দশার কারণ হবেন।(বিপদ, প্রত্যরি, বধ তারা অশুভ। )

4. যোনিকুট : প্রত্যেক জাতক বা জাতিকাই নক্ষত্র অনুযায়ী কোনও না কোনও ‘যোনি’-তে অবস্থান করেন। সঠিক ‘যোনি বিচার’-ই সম্ভব করতে পারে সঠিক দাম্পত্য।
যোনি’গুলি যথাক্রমে— অশ্ব, গজ, মেষ, সর্প, শ্যেন, মার্জার, মূষিক, গো, মহিষ, ব্যাঘ্র, মৃগ, বানর, নকুল এবং সিংহ। এই পশুগুলির স্বভাব ও একে অন্যের প্রতি মনোভাবের নিরিখেই নির্ধারিত হয় ‘যোনি’-চরিত্র।
যোনি মিলন’ বিচারের আবার কিছু পন্থা রয়েছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে অকাল বৈধব্যের প্রবনতা দেখা দেয়। এছাড়া স্বামী কর্তৃক স্ত্রী হত্যা ও স্ত্রী কর্তৃক স্বামী হত্যা পর্যন্ত ঘটতে পারে বিরূপ যোনিকুটের ফলে।

5. গ্রহমৈত্রীকুট : পাত্র পাত্রীর রাশি অধিপতি গ্রহের শক্র মিত্রতার উপর নির্ভরশীল। মিত্রতার প্রভাবে বিবাহিত জীবন সুখ, সমৃদ্ধি, অর্থ, সম্মানে পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে আর অশুভ প্রভাবে বিকলাঙ্গ শিশুর জন্ম ছাড়াও স্বামী স্ত্রীর দুর্ঘটনা জনিত অঙ্গপ্রতঙ্গ হানী সহ শেষ জীবন কোন প্রকারেই শুভকর হয় না।

6. গনকুট : জ্যোতিষ গণনায় যে সাতাশটি নক্ষত্রকে ধরা হয়েছে, তাদেরই ঐ তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। বর ও কন্যার জন্মনক্ষত্র থেকে গণ কূট বিচার করতে হয়।

স্বাতী, হস্তা, অনুরাধা, অশ্বিনী, ইত্যাদি নয়টি সত্ত্ব গুন বিশিষ্ট নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে দেবগন ও সত্ত্ব গুণী হয়।

পূর্বফল্গুনী, পূর্বাষাড়া, পূর্বভাদ্রপদ, ইত্যাদি নয়টি নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে নর গন হয়।

জ্যেষ্ঠা, মূলা, মঘা, ইত্যাদি নয়টি নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে রাক্ষস গণ হয়।এতো হল গণের পরিচয়।

এবারে বিচারটা কিভাবে হবে ?
“ স্বজাতৌ পরমা প্রীতিরমধ্যা দেব-মানুষে।
দেবাসুরে বৈরতা চ ম্রিত্যুরমানুষ-রাক্ষসে।।
রাক্ষসী চ যদা কন্যা মানুশ্চ বরো ভবেত।
তদা ম্রিত্যুরন দূরস্থো নির্ধনত্বমথাপি যা ” ।।

স্বাতী, হস্তা, অনুরাধা, অশ্বিনী, ইত্যাদি নক্ষত্রে জন্মালেই তার মধ্যে সত্ত্বগুণ থাকবে এবং সে দেবতুল্য মানুষ হবে।

একই ভাবে জ্যেষ্ঠা, মূলা, মঘা, ইত্যাদি নক্ষত্রে জন্মালে, সেই কন্যা যতই সুশীলা হোকনা কেন, বিনা দোষে তার রাক্ষস গণ হবে এবং তার মধ্যে তমগুণ থাকায় দেবগণের পাত্রের সঙ্গে তার কোন মতেই বিবাহ করা চলবে না।

বিয়ে হলে কি হবে ?

ভাল হবেনা। কলহাদি অশান্তি হবে। আর নর- রাক্ষসের বিবাহে কি হবে ?

“ অসুর- মনুজয়োশ্চেন্মৃত্যুমেব প্রদিষটা "।।

নরগণের পাত্রের সঙ্গে রাক্ষস গণের কন্যার বিবাহ হলে পাত্রের মৃত্যু হবে। অর্থাৎ রাক্ষসী কন্যা নর পাত্রকে খেয়ে ফেলবে। বিপরীত ক্ষেত্রে কোন প্রতিবন্ধকতা আসেনা।গনকুট এর শুভ মিলনের গুরুত্ব অপরিসীম।
গণ বিচারের ক্ষেত্রে কিছু ব্যতিক্রমী সিদ্ধান্তও পাওয়া গেছে। ধরা যাক, একটি ছেলে ও মেয়ের বিয়ের আগে যোটক বিচার করানো হলো। তাতে অষ্টকূট বিচারে ৩৬ টি গুনের মধ্যে ২৮ টি গুন মিলে গেলো। দুজনের কেউই মাঙ্গলিক নন তবুও বাড়ির কূল পুরোহিত বিবাহে সম্মতি দিলো না। তার কারণ ছেলেটি রাক্ষস গণ ও মেয়েটি নরগণ। মেয়ের মা বাবার বক্তব্য রাক্ষস খেয়ে ফেলে মানুষকে। সচেতন হোন- কারন এটা সম্পূর্ণ অশাস্ত্রীয় ,

মহর্ষি গর্গ বলেছেন :

" রক্ষোগণো যদা পুংসাং কুমারী নৃগণো ভবেৎ। সদ্ভকূটম খগ-প্রীতির্যোনিশুদ্ধিঃ শুভস্তথা।।"

- অর্থাৎ পাত্র রাক্ষস গণ হোক আর পাত্রী নরগন হোক না কেন, উভয়েরই যদি নক্ষত্র, গ্রহ, রাশ্যাধিপতি, যোনীকূট ও ভকূট বিশুদ্ধ হয়, গ্রহ পরস্পর মিত্র বা একই হয় তাহলে বিবাহ জীবন সুখময় হয়।

মহর্ষি বশিষ্ঠ বলেছেন :

" গ্রহমৈত্রি রাশি বশ্যম সদ্ভকূটং ভবেৎ যদি। সদগনা ভাবজনিতো দোষ কো অপি ন বিদ্যতে।।"

7. রাশি কুট : পাত্র পাত্রীর জন্ম ছকের চন্দ্রের অবস্থান জনিত রাশির শুভ অশুভ প্রভাব দাম্পত্য জীবনে সর্বাধিক গুরুত্ব বহন করে। শুভ প্রভাবে শুভ ফল আর অশুভ প্রভাবে শোক, দুঃখ, দুর্দশা সহ দাম্পত্য জীবন বিষিয়ে তোলে।

মেষরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল কন্যা ও বৃশ্চিক রাশির পাত্র/পাত্রী। শুভ হল কর্কট, সিংহ, ধনু ও মকররাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।
বৃষ রাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল তুলা ও ধনু রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল সিংহ, কন্যা, মকর ও কুম্ভ রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।
মিথুনরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল বৃশ্চিক ও মকর রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল কন্যা, তুলা, কুম্ভ ও মীন রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মোটামুটি মধ্যম।

কর্কটরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল ধনু ও কুম্ভ রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল তুলা, বৃশ্চিক, মীন ও মেষ রাশির। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

সিংহরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মকর ও মীন রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল বৃশ্চিক, ধনু, মেষ ও বৃষ রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

কন্যারাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মকর ও মেষ রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল ধনু ও বৃষ রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম তথাপিও শুভই বলা যায়। এদের মধ্যকার বিবাহে তেমন অসুবিধা প্রায়ই হয়না।
তুলারাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মীন ও বৃষ রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল মকর, কুম্ভ ও কর্কট রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

বৃশ্চিকরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মেষ ও বৃষ রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল কুম্ভ, মীন, কর্কট ও সিংহ রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

ধনুরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল বৃষ ও কর্কট রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল মীন, মেষ, সিংহ ও কন্যা রাশির। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

মকররাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মিথুন ও সিংহ রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল মীন, মেষ, কন্যা, ও তুলারাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।
কুম্ভরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল কর্কট, সিংহ ও কন্যা রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল বৃষ ও তুলা রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

মীনরাশির পাত্র/পাত্রীর ক্ষেত্রে অশুভ হল মেষ ও তুলা রাশির পাত্র পাত্রী। শুভ হল মীন, কর্কট, কন্যা, বৃশ্চিক ও ধনু রাশি। অন্যান্য রাশির মিলন মধ্যম ফলদায়ক।

এছাড়া শুভ যোটক হল পাত্রের রাশির পঞ্চমে পাত্রীর রাশি হলে। বিপরীত ভাবে পাত্রীর ক্ষেত্রেও ঠিক একই ফল প্রদান করবে। যেমন মেষের সাথে সিংহ, বৃষের সাথে কন্যা, মিথুনের সাথে তুলা, কর্কটের সাথে মীন, ধনুর সাথে মেষ, মকরের সাথে বৃষ, কুম্ভের সাথে মিথুন এবং মীনের সাথে কর্কট। জ্যোতিষ শাস্ত্রে এই যোগকে নবম-পঞ্চম নামে অভিহিত করা হয়। এছাড়া পাত্র পাত্রীর উভয়ের একই রাশি হলে যোটক বিচারে শুভ ফল প্রদান করে।

রাজযোটক :

কথায় বলে- “পুরুষের ভাগ্যে জন ও নারীভাগ্যে ধন”।তাই অনেক পাত্র পক্ষ সুলক্ষণা ভাগ্যবতী পত্রীর খোঁজ করেন যাতে সেই পাত্রীর ভাগ্যযোগে তার স্বামীর আর্থিক ও বৈষয়িক উন্নতি হয়।
জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে নর-নারীর মধ্যে মিলনে কোনও বাধা আছে কিনা সেটা পর্যবেক্ষণ করার জন্য যোটক বিচার করার প্রয়োজন হয়। জ্যোতিষ শাস্ত্র মতে নর-নারীর মধ্যে যোটক বিচার করার সময় বিশেষ করে তিনটি বিষয় দেখার প্রয়োজন আছে।
প্রথমত - রাশির সঙ্গে রাশির মিলন।

দ্বিতীয়ত - অষ্ট-কূট বিচারের মাধ্যমেও গুণাগুণ সংক্রান্ত ব্যাপারে অবহিত হওয়া।
তৃতীয়ত - রাশিচক্রে বিবাহের স্থান এবং নর-নারী অর্থাৎ জাতক-জাতিকার আয়ু-স্থান এবং কোনও বিবাহ বিচ্ছেদ বা দুর্ঘটনা যোগ আছে কিনা তা জানা দরকার।

এছাড়াও অনেক প্রশ্ন থেকে যায়। যেমন সন্তান কেমন হবে, বিবাহের পরে ভাগ্য উন্নতি হবে কিনা, স্বভাব চরিত্র কেমন হবে, স্বাস্থ্য ভাল যাবে কিনা, বিবাহিত জীবনে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিল হবে কিনা ইত্যাদি নানা প্রশ্নের মধ্য দিয়ে পাত্র বা পাত্রী নির্বাচন করা হয়। প্রয়োজন হলে শাস্ত্রীয় বিধি মতে বিবাহের পূর্বে তার প্রতিকার করা হয়।
জন্মকুণ্ডলী বিচার করা হয় লগ্ন ধরে। কিন্তু এখানে জন্ম লগ্ন অপেক্ষা চন্দ্র লগ্ন অর্থাত্ রাশি গুরুত্বপূর্ণ । কোন কোন রাশির সঙ্গে কোন কোন রাশির মিলন হতে পারে তা জানা দরকার। জাতক এবং জাতিকার যদি রাশি একই হয় তাহলে তা শুভ এবং রাজযোটক মিলন।

এছাড়াএ প্রজাপতির নির্বন্ধ যোগের উল্লেখ পাওয়া যায়, যাকে বিবাহ ক্ষেত্রে সর্বশ্রেষ্ঠ যোগ বলা হয়েছে । পাত্র পাত্রীর জন্ম ছকে এই যোগ থাকলে বিবাহিত জীবন ধন-ধান্যে, সম্পদ-সম্পত্তিতে, সন্তান-সন্তুতিতে পরিপূর্ণ ও আনন্দময় হয়ে ওঠে। এই যোগ বিবাহের ক্ষেত্রে বৈধব্য দশা, ভৌম দোষ সহ রাশি, লগ্ন, নক্ষত্র যাই হোক না কেন, কোন রূপ বিচারের প্রয়োজন পড়ে না। যোটক বিচারের অন্যান্য সাধারণ নিয়ম প্রজাপতির নির্বন্ধ যোগে প্রযোজ্য নয়।
অশুভ যোটক যেমন পাত্রের রাশির অষ্টমে পাত্রীর রাশি হলে সেই বিবাহ অবশ্যই সম্বন্ধ পরিত্যাগ করা উচিৎ,একে অরিষড়ষ্টক যোগ বলে ,যেমন - পাত্রের রাশি মেষ হলে তার অষ্টম রাশি বৃশ্চিক, বৃষের সাথে ধনু, মিথুনের সাথে মকর, কর্কটের সাথে কুম্ভ, সিংহের সাথে মীন, কন্যার সাথে মেষ, তুলার সাথে বৃষ, বৃশ্চিকের সাথে মিথুন, ধনুর সাথে কর্কট, মকরের সাথে সিংহ, কুম্ভের সাথে কন্যা, এবং মীনের সাথে তুলা।

বিপরীতে পাত্রীর রাশির ষষ্ঠ পাত্রের রাশি হলে সে বিবাহ অতিশয় শুভ ফল প্রদান করে , এই যোগকে মিত্রষড়ষ্টক যোগ বলে , যেমন - পাত্রীর রাশি মেষ আর পাত্রের রাশি কন্যা, বৃষের সাথে তুলা, মিথুনের সাথে বৃশ্চিক, কর্কটের সাথে ধনু, সিংহের সাথে মকর, কন্যার সাথে কুম্ভ, তুলার সাথে মীন, বৃশ্চিকের সাথে মেষ, ধনুর সাথে বৃষ, মকরের সাথে মিথুন, কুম্ভের সাথে কর্কট এবং মীনের সাথে সিংহ।

উদাহরণ স্বরূপ :

পাত্রের মেষ রাশি আর পাত্রীর কন্যা রাশি বা তুলা রাশির পাত্রের সহিত মীন রাশির পাত্রী যেন না হয়ে যায় তাহলে মহা সর্বনাশ ঘটে যাবে তাতে সন্দেহ নেই।
মনে রাখতে হবে মিত্রষড়ষ্টক যোগ উল্টো হলে বিপরীত ফল প্রদান করবেই করবে। (আবারও বলি পাত্রীর রাশির ষষ্ঠে পাত্রের রাশি হবে) এর বিপরীত যোগের বিবাহে স্বামী স্ত্রী হবে বিরুদ্ধ মতাবলম্বী, সুখের সংসারে নেমে আসবে দুঃসহ দুঃখ, বেদনা, বিচ্ছেদ ও বৈধব্যদশা। এই যোগের বিবাহ স্বয়ং দেবতাগনেরও পরিত্যাজ্য।

8. ত্রিনাড়ীকুট- ত্রিনাড়ীকুট বিচারের শুভ প্রভাবে সংসার সমাজ ও সভ্যতার শুভ যোগাযোগ তৈরী করে, দাম্পত্য জীবনে শান্তির সুবাতাস প্রবাহিত হয়। আর বিপরীত প্রভাবে অশান্তির তীব্র অনল জ্বলতে থাকে। বিবাহের পর সামাজিক কলহ, বিচ্ছেদ, একাকী জীবন যাপন, পিতামাতাসহ সংসারের আত্মীয় পরিজন ছেড়ে বনবাস বা বিদেশ বাস প্রভৃতি ঘটে, একমাত্র ত্রিনাড়ী কুটের অশুভ প্রভাবের ফলে।
ভৌম দোষ বা মাঙ্গলিক দোষ। পাত্রপাত্রীর জন্ম কুন্ডলীর লগ্নে, চতুর্থে, ষষ্ঠে, অষ্টমে এবং দ্বাদশে মঙ্গল অবস্থান করলে জ্যোতিষশাস্ত্রে একে ভৌম বা মাঙ্গলিক দোষ বলে। এই দোষ দাম্পত্য জীবনে বিদ্রোহ, ফাটল, অশান্তি, বিচ্ছেদ ছাড়াও পাত্রের ক্ষেত্রে বিপত্নীক এবং পাত্রীর ক্ষেত্রে বিবাহিত জীবনে স্বামীর অকাল জীবনাবসান এর ইঙ্গিত প্রদান করে। তাছাড়া এদের বিবাহিত জীবনে কোন এক সময়ে দাম্পত্য-অশান্তির মাত্রা এতটাই বৃদ্ধি পায় যা পাত্র/পাত্রীকে মৃত্যুতুল্য করে তোলে। এক কথায় উভয়েরই মনের মৃত্যু ঘটে যায়। তবে এই ভৌম বা মাঙ্গলিক দোষ পাত্র পাত্রীর উভয়ের জন্মকুন্ডলীতে থাকলে তাদের বিবাহিত জীবন সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ হয়ে ওঠে এবং উভয়েই দীর্ঘায়ু লাভ করে ছাড়াও সমাজে মানব সভ্যতার অগ্রগতি সাধন করতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে।
জন্ম কুণ্ডলীতে ১২টি করে ঘর থাকে। তার মধ্যে অন্তত ৫টি ঘরে মঙ্গলের অবস্থান একজনকে মাঙ্গলিক হিসেবে চিহ্নিত করে। তবে ভৌম দোষের কম-বেশি থাকে। যত কম ঘরে মঙ্গল অবস্থান করবে, তার প্রভাবও ততই কম হবে। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে মোট জনসংখ্যার ৪২ শতাংশই মাঙ্গলিক। লগ্ন, চতুর্থ, সপ্তম,অষ্টম, দ্বাদশ স্থানে মঙ্গলের অবস্থানকে মাঙ্গলিক দোষ বলাহয়। পুরুষের এই দোষ স্ত্রীর জন্য অশুভ এবং স্ত্রীর পক্ষে স্বামীর, ইহা পরীক্ষীত ও প্রমাণিত।

কোন জাতক বা জাতিকার কোষ্ঠী বিচারে আগেই যদি জানতে পারা যায় যে তার দাম্পত্য সুখের যোগ নেই, তা হলে তার বিবাহের আগে সতর্কতা অবলম্বন করা যেতে পারে এবং ঐ জাতক বা জাতিকার জন্য সম্ভাব্য পাত্রী বা পাত্রের কোষ্ঠী বিচার করে দেখা যেতে পারে যে সেই কোষ্ঠীতে দাম্পত্য সুখের সম্ভাবনা কি রকম। পাত্র বা পাত্রীর সাধারণভাবে জন্ম-কুন্ডলীতে লগ্নের সপ্তমভাব থেকে জায়া বা পতির বিচার করা হয়। সপ্তমভাবে যে যে গ্রহের যোগ বা দৃষ্টি, সপ্তমভাবপতি, সপ্তমভাবপতি যে যে রাশি ও নবাংশে অবস্থিত সেই সেই রাশি ও নবাংশের অধিপতি, সপ্তমভাব ও পত্নীর কারকগ্রহ শুক্র, শুক্র অবস্থিত রাশি হতে সপ্তম রাশাধিপতি – পতি-পত্নী ও বিবাহিত জীবনের উপর এই সকল গ্রহেরই প্রভাব আছে।
বিবাহিত জীবন বিষয়ে সপ্তমভাবের মত দ্বিতীয়ভাবও বিচার করতে হবে।কারণ, দ্বিতীয়ভাব কুটুম্বস্থান। বিবাহিত জীবনে সাফল্য বা অসাফল্যের পিছনে কুটুম্বদের ভূমিকা অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গুরুত্বপূর্ণ, পতি পত্নীর উভয় পক্ষেরই। সেই কারণেই বিবাহিত জীবনের জ্যোতিষিক অনুসন্ধানে ধনভাব/কুটুম্ব স্থান ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ, চতুর্থভাব (সুখ) এবং দ্বাদশ (শয্যা সুখ) ভাবেরও গুরুত্ব আছে।
রাহু ও কেতু ভিন্ন যে গ্রহের স্ফুটাংশ (রাশি ব্যতীত অংশ-কলাদি) সর্বাপেক্ষা কম, সেই গ্রহকেও জায়া কারক আখ্যা দেওয়া হয়। চর-কারকত্বে যে গ্রহ জায়া কারক হিসাবে নির্ণীত হবে, বিবাহিত জীবনে তারও প্রভাব আছে। স্থির-কারকত্বে শুক্র পত্নীকারক গ্রহ। সপ্তমভাবপতি ও সপ্তমপতির নবাংশপতি হতে পতির বিচার করতে হয়।
বিবাহোত্তর জীবনে সুখলাভের সম্ভাবনা বিষয়ে প্রাচীন জ্যোতিষ গ্রন্থাদিতে যা পত্নীসুখ বিষয়ে লিখিত, তা পতিসুখ সম্বন্ধেও প্রযোজ্য।
লগ্নের সপ্তমস্থান শুভ গ্রহের ক্ষেত্র এবং শুভগ্রহ দ্বারা যুক্ত বা দৃষ্ট হলে পত্নীসুখ ও শ্বশুর কুলোদ্ভব সুখ হয় এবং স্ত্রী রূপবতী গুণবতী হয়। বিপরীতে- বিপরীত ফল হয় অর্থাৎ সপ্তমস্থান পাপক্ষেত্র হয়ে পাপগ্রহযুক্ত বা দৃষ্ট হলে ঐ প্রকার সুখ হয় না। শুভাশুভ মিশগ্রহে মিশ্র ফল চিন্তনীয়।

লগ্নাপেক্ষা সপ্তমে বহু পাপগ্রহের অবস্থানে বহু স্ত্রী সত্ত্বেও স্বল্প সুখ এবং বহু শুভগ্রহের অবস্থানে একটি স্ত্রী হলেও বিশেষ সুখ হয়। পতির কুন্ডলীতে লগ্নপতি ও সপ্তমপতি যে গ্রহের ক্ষেত্রে ও নবাংশে অবস্থিত, সেই গ্রহের ক্ষেত্রে বা নবাংশে স্ত্রীর জন্ম হলে সেই পত্নী স্বামীর সুখদায়িনী হয়ে থাকে। পতির জন্মকুন্ডলীতে চন্দ্র যে রাশিতে অবস্থিত, সেই রাশির সপ্তমরাশিদর্শী গ্রহের বা তদরাশি স্থিত গ্রহের ক্ষেত্রে যদি স্ত্রীর জন্ম হয়, তাহা হলে সেই স্ত্রী পতিপ্রিয়া হয়।
নারীর জন্মকুন্ডলীতে দ্বিতীয়, সপ্তম ও দ্বাদশপতি বৃহস্পতি দৃষ্ট এবং কেন্দ্র কোনস্থ হলে, অথবা সপ্তমপতির দ্বিতীয়ে, সপ্তমে বা একাদশ স্থানে শুভ গ্রহের অবস্থানে জাতক/ জাতিকা স্ত্রী/ পতি পুত্র সুখে সুখী হয়।

চন্দ্র ও লগ্ন হতে সপ্তমভাব যদি নবমপতি বা স্বীয় পতি বা শুভগ্রহ যুক্ত/দৃষ্ট হয়, তাহা হলে সপ্তমভাবের শুভ হয় এবং সেক্ষেত্রে বিবাহিত জীবন সুখের হয়।

সপ্তমভাব যদি সমরাশি হয়, সেই রাশ্যাধিপতি ও শুক্র যদি সমরাশিস্থিত হয় এবং পঞ্চম ও সপ্তমভাবের অধিপতিদ্বয় বলবান হয় ও অস্তমিত না হয়, তাহা হলে স্ত্রীপুত্র সুখ হয়।

কোন নারীর জন্মকুন্ডলীতে যদি :

ক) লগ্ন বা লগ্নপতি ও চন্দ্র সমরাশিস্থিত এবং শুভগ্রহ যুক্ত, অথবা
খ) চন্দ্র, লগ্ন ও চতুর্থভাব যদি শুভ গ্রহ যুক্ত বা দৃষ্ট, বা
গ) লগ্নাপেক্ষা ত্রিকোণে (লগ্নে, পঞ্চমে, নবমে) শুভগ্রহেরা অবস্থিত, অথবা যদি সপ্তমভাব ও ঐ ভাব নবংশের অধিপতি শুভগ্রহ হয়, তাহা হলে সেই নারী গুণবতী ও সৌভাগ্যবতী হয়। পতিসুখ না পেলে সেই নারীকে সৌভাগ্যবতী বলা যাবে না, সুতরাং এই সকল যোগে পত্নী পতিসৌখ্যলাভ করে।

পত্নীর পতিপ্রিয়া হবার আরও কয়েকটা যোগ :

ক) লগ্ন সমরাশিতে এবং মঙ্গল, বুধ, বৃহস্পতি ও শুক্র অতীব বলবান,
খ) লগ্নের নবাংশপতি শুভ গ্রহ
গ) লগ্নে শুক্র ও চন্দ্র বা বুধ ও চন্দ্র বা বুধ ও শুক্র অথবা শুভগ্রহ থাকলে,
ঘ) সপ্তমে একাধিক শুভগ্রহ বা পূর্ণচন্দ্র থাকলে,
ঙ) গুরু, শুক্র, বুধ ও চন্দ্র সকলেই লগ্নকে পূর্ণদৃষ্টি দিলে,
চ) লগ্ন থেকে কেন্দ্র কোণে বৃহস্পতি, বিশেষতঃ স্বগৃহে বা তুঙ্গ রাশিতে,
ছ) অষ্টমভাব থেকে নবমে এবং লগ্ন হতে নবমে শুধুমাত্র শুভ গ্রহের অবস্থান,
জ) লগ্ন ও রাশি শুধুমাত্র শুভগ্রহ দ্বারা দৃষ্ট।
দাম্পত্য সম্প্রীতি বা পতি-পত্নীর পরস্পর মিত্রতা-শত্রুতা বিষয়ে নানা যোগের উল্লেখ করার সময় অনেক সময় দাম্পত্যসুখের অভাবের যোগের কথাও বলা হয়েছে, তবে দাম্পত্য সুখের অভাব সম্পর্কে নির্দিষ্ট কিছু যোগ :

১) শুক্র অবস্থিত রাশি হতে সপ্তমে পাপগ্রহের অবস্থান বা শুক্র পাপযুক্ত,
২) চন্দ্র সপ্তমস্থ, সপ্তমপতি ব্যয়স্থ এবং শুক্র দুর্বল,
৩) দ্বাদশপতি লগ্নে বা সপ্তমে,
৪) ব্যয়াধিপ শত্রু নবাংশে নীচ নবাংশে, অষ্টমভাব-নবাংশে বা ষষ্ঠাষ্টমে স্থিত,
৫) শুক্রের ত্রিকোণে অর্থাৎ পঞ্চমে বা নবমে শনির অবস্থান,
৬) সপ্তমে শনির অবস্থান,
৭) সপ্তমপতি পাপ নবাংশে, বা নীচ নবাংশে,
৮) ক্রুর ষষ্ঠাংশে,
৯) শুক্র নীচ নবাংশে,
১০) সপ্তমপতি রবির রাশিতে অর্থাৎ সিংহে এবং রবি পাপগ্রহের রাশিতে বা নবাংশে এবং পাপগ্রহ যুক্ত/দৃষ্ট,
১১) চন্দ্রের রাশিতে সপ্তম পতি ও চন্দ্র পাপ নবাংশে,
১২) স্ত্রীজাতকের সপ্তমে বা অষ্টমে পাপগ্রহ, বিশেষতঃ সপ্তমে একাধিক দুর্বল পাপগ্রহের অবস্থান, অথবা সপ্তমে পাপগ্রহ দৃষ্ট রবি স্থিত হলে।

দাম্পত্য সুখ বিচারে পতি-পত্নীর মিত্রতা-বৈরিতা বিচার ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। বিবাহে পাত্র-পাত্রীর কোষ্ঠীর মিল দেখার জন্য প্রচলিত যে অষ্টকূট যোটক বিচার পদ্ধতি ঐ পদ্ধতির অষ্টকুটের অন্যতম কুট, বর ও কন্যার উভয়ের রাশির অধিপতির মিত্রতা, ভাবী স্বামী-স্ত্রীর মানসিক সৌখ্যের অন্যতম নির্ণায়ক হিসাবে গণ্য হতে পারে। তবে এ’ছাড়া উভয়ের চন্দ্রস্থিত নবাংশ পতিদ্বয়ের এবং উভয়ের চন্দ্রস্থিত রাশির অধিপতির দ্বয়ের যে যে নবাংশে অবস্থিত সেই নবাংশ পতিদ্বয়েরও মিত্র আছে কিনা দেখা প্রয়োজন, থাকলে ভাবী বর বধুর মানসিক সম্প্রীতি বুঝতে হবে, না থাকলে সম্প্রীতির অভাব বুঝতে হবে।

দাম্পত্য সুখ বা সুখের অভাব সম্বন্ধে নির্দিষ্ট কিছু যোগের উল্লেখ এই প্রবেন্ধে করা হল, তবে কোন দম্পতির জীবনে সুখ বিষয়ে সিদ্ধান্ত করার জন্য, শুধুমাত্র এই যোগগুলি বা এই ধরণের যোগের উপর সম্পূর্ণ নির্ভর করা যাবে না। উভয়ের কোষ্ঠীর সামুহিক মূল্যায়ন, যোগকারী গ্রহের এবং চন্দ্র ও শুক্রের বলাবল ও শুভাশুভত্ব বিবেচনা করতে হয় ।


কোন কোন রাশির সঙ্গে কোন কোন রাশির প্রেম বিবাহ শুভ অশুভ


মেষ রাশি (২১ মার্চ- ২০ এপ্রিল) : মেষ রাশির জাতক জাতিকাদের সাথে মেষ সিংহ ও ধনু রাশির জাতক জাতিকাদের মনের মিল খুব বেশি হয় বলে এদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক হয় চিরস্থায়ী। তবে এই বন্ধুত্ব থেকে যদি ভালোলাগা বা ভালোবাসা হয়ে যায় তা চিরস্থায়ী হয় না। কারন ভালোবাসার পরিনতি অর্থাৎ বিয়ের জন্য মেষের জাতক জাতিকাকে অবশ্যই তুলা কুম্ভ বা মিথুন রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নেওয়া উচিৎ। তাহলেই প্রেম হবে সার্থক ও পরিনতি হবে সুখি দাম্পত্য জীবন। মেষ রাশির জাতক জাতিকার কখনোই কর্কট, বৃশ্চিক বা মীন রাশির জাতক জাতিকাকে প্রেমিক প্রেমিকা হিসেবে গ্রহন করা শুভ নয়। তাতে প্রেমে বিচ্ছেদ হবার সম্ভাবনা প্রবল।

বৃষ রাশি ( ২১ এপ্রিল- ২০ মে) : বৃষ রাশির জাতক জাতিকার সাথে বৃষ কন্যা ও মকর রাশির জাতক জাতিকাদের মনের মিল অনেক বেশি বলে এদের বন্ধুত্ব দীর্ঘস্থায়ী হয়ে থাকে। তবে ভালোবাসা ও বিয়ের জন্য তা শুভ নয়। ভালোবেসে বিয়ের জন্য কর্কট বৃশ্চিক ও মীন রাশির জাতক জাতিকা উত্তম। তাহলে আপনার জীবন হবে সুখী ও সুন্দর। আর যদি আপনি মেষ ,সিংহ বা ধনু রাশির জাতক জাতিকাকে ভালোবেসে বিয়ের স্বপ্ন দেখেন তা হলে বলতে হবে আপনি ঠকতে যাচ্ছেন। আপনার প্রেমের পরিনতি শুভ নয়।

মিথুন রাশি (২১ মে - ২০ জুন) : মিথুন অস্থির চঞ্চল রাশি। ফলে মিথুন রাশির জাতক জাতিকারা সহজেই মিথুন তুলা ও কুম্ভ রাশির সাথে দীর্ঘস্থায়ী বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারে। তবে প্রেম ও প্রেমের সফল পরিনতির জন্য তা শুভ নয়। মিথুন রাশির জাতক জাতিকা যদি প্রেমে সফলতা পেতে চান ও পছন্দের মানুষটির সাথে ঘর বাঁধতে চান। তাহলে অবশ্যই ধনু, মেষ ও সিংহ রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নিন। বৃষ, কন্যা ও মকর রাশির জাতক জাতিকার সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়ালে দেখবেন তিনি সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যার্থ হচ্ছেন ও তার অকল্পনিয় অজুহাতের কারনে সম্পর্কের ছেদ হয়ে যাবে।

কর্কট রাশি (২১ জুন- ২০ জুলাই) : কর্কট রাশির জাতক জাতিকার সাথে সব সময়ই কর্কট বৃশ্চিক ও মীন রাশির জাতক জাতিকার মনের মিল হয়ে থাকে। ফলে তাদের মধ্যে সহজেই বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। কিন্তু প্রেম ও প্রেমের শুভ পরিনতির জন্য তা ঠিক হবে না। কর্কট রাশির জাতক জাতিকাকে প্রেম করে বিয়ে করার জন্য অবশ্যই বৃষ কন্যা ও মকর রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নিতে হবে। তাহলেই জীবনে প্রেমের সঠিক পরিনতি ও ভালোবাসা উপলব্ধি করতে পারবেন। আর যদি ভালোবেসে কাঁদতে চান তাহলে মেষ সিংহ ও ধনুর জাতক জাতিকাকে প্রেমিক প্রেমিকা হিসেবে বেছে নিয়ে সারা জীবন ধরে কাঁদুন, কে বারন করেছে।

সিংহ রাশি (২১জুলাই- ২১ আগষ্ট) : সিংহ রাশির জাতক জাতিকার সাথে সর্বদা সিংহ ধনু ও মেষ রাশির জাতক জাতিকার মনের মিল হয় সবচেয়ে বেশী। ফলে দীর্ঘস্থায়ী বন্ধুত্বের বন্ধনে জড়াতে চাইলে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিন। কিন্তু এই বন্ধুত্ব থেকে যদি ভালোবাসার জন্ম হয় তাহলে তা আপনাকে ভোগাবে নিশ্চিত। যদি প্রেম করে বিয়ে করতে চান, ও সুখী জীবন গড়তে চান তাহলে অবশ্যই মিথুন ,তুলা ও কুম্ভ রাশির জাতক জাতিকা আপনার উপযুক্ত। মনে রাখবেন আপনার প্রেমিক প্রেমিকার রাশি যদি হয় কর্কট, বৃশ্চিক বা মীন তাহলে প্রেমে সফলতাতো আসবেই না, বরং প্রেমের বিয়ে হলে বিচ্ছেদের আশঙ্কা প্রবল। তারপরে আপনার ইচ্ছা। অনন্ত কাল কান্নার ইচ্ছা থাকলে কে বারন করবে বলুন।

কন্যা রাশি (২২ আগষ্ট- ২২ সেপ্টেম্বর) : কন্যা রাশির জাতক জাতিকার জন্য সবসময় কন্যা মকর ও বৃষ রাশির জাতক জাতিকা উত্তম। এদের মনের মিল খুব বেশী হয়। একে অন্যকে সহজেই বুঝতে পারে বলে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে তারাতারি। তবে সেই বন্ধুত্ব ও প্রেম এক নয়। কারন প্রেমের ক্ষেত্রে উভয়ই কোনো সিদ্ধান্তে আসতে পারেনা বলে প্রেমে ব্যর্থতা চলে আসে। কন্যা রাশির জাতক জাতিকার প্রেমের বিয়েতে সফলতা ও সুখি সুন্দর দাম্পত্য জীবন পেতে হলে অবশ্যই কর্কট , বশ্চিক বা মীন রাশির জাতক জাতিকাকে নির্বাচন করা উচিৎ। কন্যা রাশির জাতক জাতিকা যদি মেষ, সিংহ ও ধনু রাশির জাতক জাতিকাকে ভালোবেসে জীবন সাথী করতে চান ,তাহলে থামুন। কারন আপনার জীবনে বিচ্ছেদ হবার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশী । দুজনের ব্যক্তিত্বের সংঘাত বিচ্ছেদের প্রধান কারন হয়ে দাড়াবে।

তুলা রাশি (২৩ সেপ্টেম্বর- ২১ অক্টোবর) : তুলা রাশির জাতক জাতিকাদের সাথে তুলা মিথুন ও কুম্ভ রাশির জাতক জাতিকার মনের মিল খুব বেশী হয় বলে বন্ধুত্ব হয় দীর্ঘস্থায়ী ও নি:স্বার্র্থ। কিন্তু প্রেমের জন্য তা উত্তম নয়।তুলা রাশির জাতক জাতিকার প্রেম ও প্রেম করে বিয়ে করে সুখী জীবনের জন্য অবশ্যই মেষ সিংহ ও ধনু রাশির জাতক জাতিকাকে গ্রহণ করা উচিৎ। বৃষ, কন্যা ও মকর রাশির জাতক জাতিকার সাথে প্রেম বিয়ে ও বন্ধুত্ব যদি হয়েই যায় তাহলে আপনাকে কিছু দিন পরে অবশ্যই অনুশোচনা করতে বশতে হবে। বিচ্ছেদ হবে না তবে যন্ত্রনা থেকে মুক্তিও মিলবে না।

বৃশ্চিক রাশি (২২ অক্টোবর- ২০ নভেম্বর ) : বৃশ্চিক রাশির জাতক জাতিকার সাথে বৃশ্চিক কর্কট ও মীন রাশির জাতক জাতিকার বন্ধুত্ব হয় গাঢ়। কিন্তু সেই বন্ধুত্ব থেকে প্রেম খুব একটা ভালো হয় না। প্রেম করে বিয়ে করে সুখি সুন্দর জীবন গড়তে হলে অবশ্যই বৃষ কন্যা বা মকর রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নিতে হবে। আর যদি ভুল করে মেষ সিংহ বা ধনু রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নেন, তাহলে প্রেমে অনিশ্চয়তাতো আছেই সাথে বিবাহ বিচ্ছেদের যন্ত্রনাও ভোগ করতে হতে পারে। তাই আপনার প্রিয়জনের রাশি যদি মেষ সিংহ বা ধনু হয়ে থাকে তাহলে এখনই সময় সঠিক সিদ্ধান্ত নেবার। জীবন আপনার, হাসবেন না কাঁদবেন তা আপানাকেই ঠিক করতে হবে।

ধনু রাশি (২১ নভেম্বর - ২০ ডিসেম্বর) : ধনু রাশির জাতক জাতিকার সাথে ধনু, সিংহ ও মেষ রাশির জাতক জাতিকার হৃদয়ের মিল খুব বেশী হয়। এদের মধ্যে বন্ধুত্ব গড়ে উঠলে তা সহজে ভাঙ্গে না। কিন্তু প্রনয় ও বিয়ের জন্য তা মোটেও সুখকর নয়। কারন ব্যক্তিত্বের সংঘাত লেগেই থাকে। প্রেমে সফলতা লাভ করে সুখি সুন্দর আগামীর জন্য আপনার উচিৎ মিথুন তুলা বা কুম্ভ রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নেওয়া। এতে আপনার জীবন আনন্দে ভরে উঠবে। আর যদি আপনি প্রেমিক প্রেমিকা হিসেবে কর্কট, বৃশ্চিক বা মীন রাশির জাতক জাতিকাকে বেছে নেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই প্রতারিত হতে হবে বা বিবাহের পরে বিচ্ছেদের যন্ত্রনা ভোগ করতে হবে।

মকর রাশি (২১ ডিসেম্বর- ২০ জানুয়ারি ) : মকর রাশির জাতক জাতিকার সাথে মকর বৃষ ও কন্যা রাশির জাতক জাতিকাদের বন্ধুত্ব শুভ বলেই মানা হয়। এই বন্ধুত্ব প্রেমের দিকে গড়ালে তা খুব একটা ভালোও হয়না আবার খারাপও হয় না। তবে প্রেমে সফল হতে হলে ও প্রিয় জনকে নিয়ে ঘর বাঁধতে হলে অবশ্যই কর্কট, বৃশ্চিক ও মীন রাশির জাতক জাতিকার থেকে উত্তম আর হয় না। গৃহে সর্বদা আনন্দঘন পরিবেশ বজায় থাকবে। কিন্তু আপনার প্রিয়জন যদি হয়ে থাকেন মেষ সিংহ বা ধনুর জাতক জাতিকা তাহলে আপনাকে অবশ্যই ব্যার্থতার গ্লাণি মাথা পেতে নিতে প্রস্তুত থাকতে হবে।

কুম্ভ রাশি (২১ জানুয়ারি - ১৮ ফেব্রুয়ারি ) : কুম্ভ রাশির সাথে কুম্ভ, মিথুন ও তুলা রাশির জাতক জাতিকার বন্ধুত্ব খুবই উত্তম বলা যায়। তবে প্রেমের বিয়ের জন্য তা মোটেও শুভ নয়। কুম্ভ রাশির জাতক জাতিকার জীবনে প্রেমে সফলতা ও সাংসারিক জীবনে প্রশান্তি বয়ে আনতে পারে সিংহ ধনু ও মেষ রাশির জাতক জাতিকা। বৃষ, কন্যা ও মকর রাশির জাতক জাতিকার সাথে প্রেমের সম্পর্কে জড়ালে তা সফল হবার সম্ভাবনা কম। যদি সফল হয়ও দেখা যায় মনের প্রশান্তি হারিয়ে যায়। কুম্ভ রাশির জাতক জাতিকার জীবনে এমনিতেই অপ্রত্যাশিত ঘটনা বারবার ঘটে। তাই অবশ্যই প্রেমিক প্রেমিকা নির্বচনে আপনাকে আরো সতর্ক থাকতে হবে।

মীন রাশি (১৯ ফেব্রুয়ারি - ২০ মার্চ) : মীন রাশির জাতক জাতিকা সর্বদাই রহস্যময় আচরন করে থাকেন। সর্বদা মনের মাঝে অস্থিরতা বিরাজ করে। মীন রাশির জাতক জাতিকার সাথে মীন কর্কট ও বৃশ্চিক রাশির বন্ধুত্ব দীর্ঘস্থায়ী হয়ে থাকে। কিন্তু জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুসারে এদের মধ্যে বিবাহোত্তর সম্পর্ক ভালো যায় না। মীন রাশির জাতক জাতিকার প্রেমে সফলতা পেতে হলে ও সুখি সুন্দর সংসার জীবন কামনা করলে অবশ্যই বৃষ,কন্যা মকর রাশির জাতক জাতিকার চেয়ে উত্তম আর কোনো রাশি নয়। আর আপনি যদি প্রেমে প্রতারিত না হতে চান ও সংসারে বিচ্ছেদ নামক যন্ত্রনা না ভোগ করতে চান তা হলে অবশ্যই মেষ সিংহ ও ধনু রাশির জাতক জাতিকাকে এড়িয়ে চলুন। তাহলেই জীবন সফল ও সার্থক হয়ে উঠবে।



জ্যোতিষশাস্ত্রালোচনায় দেখা যায় যে খ্রীষ্টীয় দশম শতাব্দী পর্যন্ত বিবাহে নাড়ীনক্ষত্র কূট বিচার বা অষ্টকূট যোটক বিচার ছিলনা। (এই বিষয়ে শ্রদ্ধেয় স্বর্গীয় শ্রী হরিচরণ স্মৃতিতীর্থ বিদ্যারত্ন মহাশয় তাঁর বিবাহ-মিলন- বিষয়ক “ সুখের সন্ধান” পুস্তকে কিছু আলোচনা করেছেন)।খ্রীষ্টীয় নবম শতাব্দী থেকে পঞ্চদশ শতাব্দী পর্যন্ত বিভিন্ন অবস্থায় ভারতীয় জনচিত্ত কর্ম বিমুখ ও ক্রিয়াশূন্য হয়ে পড়েছিল।সম্ভবতঃ ওই সময়ে অন্যান্য নানান রকম প্রবাদবাক্য ও কুসংস্কারের সঙ্গে এই তথাকথিত বিবাহ মিলন বা যোটক বিচার পদ্ধতিটা জন মানসে অবস্য কর্তব্য হিসাবে প্রবেশ লাভ করে এবং কতিপয় সুচতুর ব্রাহ্মণ পণ্ডিত এ যুগের ন্যায় সে যুগেও লোক ঠকান জ্যোতিষ ব্যবসা ফেঁদে বসেন ও সকল প্রকার সামাজিক ক্রিয়া কর্ম কে নিয়ন্ত্রন করার জন্য নানান রকম ফন্দী ফিকির, তাবিজ কবজ ও কুসংস্কারের আশ্রয় নেন।
জন্ম সময়ের গ্রহসংস্থান থেকে মানুষের ভাগ্যফলের বিচারের তুলনায় নাড়ীনক্ষত্র ঘটিত অষ্টকূট বিবাহ মিলন বিচারের কোন যুক্তিসঙ্গত গুরুত্ব থাকে না।গণ-মিলনে-নর-রাক্ষস থেকে দম্পতির অকালমৃত্যুর কোন ন্যায়সঙ্গত যুক্তি পাওয়া যায়না। কারন জন্মনক্ষত্রের উগ্র-চরাদি গণ থেকে নর-রাক্ষসাদির প্রকৃতি বিচার করা হয়।এই গণনা ভাগ্যফলের বিচারের তুলনায় স্থুল। কিন্তু লৌকিক বিচারে একটা আতঙ্কের কারন সৃষ্ট হয়ে বহুদিন ধরে চলে আসছে। জ্যোতিষশাস্ত্র মতে পাত্রপাত্রীর পরস্পরের রাশির মিলের অভাবে বড় জোর মনের বা মতের অনৈক্য ঘটতে পারে, কিন্তু দোষযুক্ত চন্দ্রে দম্পতির অমঙ্গলের কারন যুক্তিসঙ্গত ভাবে পাওয়া যায় না।কারন জ্যোতিষশাস্ত্র মতে চন্দ্র যুক্ত রাশি থেকে আয়ু এবং ভাগ্য বিচার করলে লগ্ন ভিত্তিক বিচারের কোন গুরুত্ব থাকে না।অথচ ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্র প্রধানত লগ্ন ভিত্তিক গণনার উপরই নির্ভরশীল।
চন্দ্র সওয়া দুই দিন প্রত্যেক রাশিতে থাকে;পক্ষান্তরে লগ্ন প্রত্যেক দুই ঘণ্টা অন্তর পরিবর্তিত হয়।এই অবস্থায় চন্দ্র থেকে ভাগ্য গণনা এবং অকালমৃত্যু প্রভৃতি অমঙ্গল বিচার করলে, সওয়া দুই দিন পর্যন্ত যত পুরুষ বা স্ত্রীলোক জন্মাবে, তাদের একটা কুষ্ঠী দিয়ে যাবতীয় ভাগ্যফল ও স্ত্রী বা স্বামী হানির বিচার করা যাবে। তা কিন্তু কোনভাবেই সম্ভবপর নয়।
১০০২ খ্রীষ্টাব্দে মালবের ধারা নগরীতে ভোজরাজের সভায় স্মৃতির পণ্ডিতগণ প্রথমে অষ্টকূট বিচারের গণনা ‘রাজমার্তণ্ড’ নামক জ্যোতিষসংহিতায় প্রবর্তন করেন।তারপর আচার্যগণ ক্রমশঃ নক্ষত্রঘটিত যাবতীয় ফল বিবাহ-মিলনের বিচারে প্রবর্তন করেন।শ্রীনিবাস শাস্ত্রীর ‘শুদ্ধিদীপিকা’, রামদৈবজ্ঞের ‘দৈবজ্ঞ- মনোহর ও ‘মুহূর্তচিন্তামণি’ প্রভৃতি পুস্তকে এবং খ্রীষ্টীয় ১৫শ শতাব্দীতে বঙ্গদেশের রঘুনন্দনের ‘জ্যোতিষতত্বে’ এই অষ্টকূট-বিচার স্থান পায়।এইভাবে ক্রমশঃ প্রসারলাভ করে পঞ্জিকার জ্যোতিষ বচনারথে স্থান পেয়ে সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে।
মানব জীবনের উপর জ্যোতির্বিজ্ঞানের প্রভাব সম্পর্কিত শাস্ত্র, জ্যোতিষশাস্ত্র নামে পরিচিত। জ্যোতিষশাস্ত্রে মেষ, বৃষ, মিথুন, ইত্যাদি বারোটি রাশি, নয়টি গ্রহ, ও সাতাশটি নক্ষত্র এবং লগ্ন ভিত্তিক অসংখ্য যোগের ও সূত্রের সাহায্যে মানুষের ভূত ভবিষ্যৎ বলার চেষ্টা করা হয়ে থাকে।
আশুন এবারে দেখা যাক যোটক বিচার বলতে ঠিক কি বুঝায়?
বিবাহের পূর্বে বর ও কন্যার পরস্পরের জন্মরাশি, জন্মনক্ষত্র ও রাশ্যাধিপ গ্রহদি থেকে, যে শুভাশুভ ফল বিচার করা যায়, তাকেই যোটক বিচার বলে। যোটক বিচার অষ্টপ্রকারে বিভক্ত।
বর্ণকূট, বশ্যকূট, তারাকূট, যোনিকূট, গ্রহমৈত্রীকূট, গণমৈত্রীকূট, ও ত্রিনাড়ীকূট। বর ও কন্যার পরস্পরের বর্ণের একতা বা মিত্রতা হলে এক গুন ফল, তার সঙ্গে বশ্যতা যোগ হলে দ্বিগুণ ফল, তারাশুদ্ধি যোগে ত্রিগুন ফল, এইভাবে অষ্টপ্রকারে শুভ হলে দম্পতীর পূর্ণ শুভ ফল ভাবা হয়।
এবার দেখা যাক বর্ণ কাকে বলে বা বর্ণ বলতে ঠিক কি বুঝায়-। জ্যোতিষশাস্ত্রে মেষ, বৃষ, মিথুন, ইত্যাদি যে বারোটি রাশি ব্যাবহার করা হয় তাদের বিপ্র, ক্ষত্রিয়, বৈশ্য, শুদ্র বর্ণে বিভক্ত করা হয়েছে।যথা যে ব্যক্তিগনের জন্ম কর্কট, মীন, বা বৃশ্চিক রাশিতে তাঁদের বর্ণ বিপ্র। এইভাবে যাঁদের জন্ম সিংহ, তুলা বা ধনু রাশিতে তাঁদের বর্ণ ক্ষত্রিয়। যোটক বিচারের নিয়মে শুদ্র বর্ণের থেকে বৈশ্য বর্ণ শ্রেষ্ঠ, বৈশ্য বর্ণের থেকে ক্ষত্রিয় বর্ণ শ্রেষ্ঠ, আবার ক্ষত্রিয় বর্ণের থেকে বিপ্র বর্ণ শ্রেষ্ঠ।
বর্ণ ফলমে বলা হয়েছে যে-
"ক্ষাত্র-বিট্-শুদ্র-বিপ্রাঃ স্যুঃ ক্রমান্মেষাদি-রাশয়ঃ।
তত্র বর্ণাধিকা কন্যা নৈবোদ্বাহ্যা কদাচন" ।।
অর্থাৎ “বরের বর্ণাপেক্ষা কন্যার বর্ণ শ্রেষ্ঠ হলে, সেই কন্যাকে কদাচ বিবাহ করিবেনা”। করলে কি হবে?
"বর্ণশ্রেষ্ঠা তু যা নারী বর্ণহীনস্তু যাঃ পুমান।
বিবাহং যদি কুরব্বীত তস্য ভর্তা বিনশ্যতি"।।
অর্থাৎ “বর্ণশ্রেষ্ঠা কন্যাকে বিবাহ করিলে ভর্তার নিধনাশঙ্কা।
সেই কন্যা অতি মহৎকুল সম্ভূতা হইলেও পতিপরায়ণা হয় না”।
একে তো জন্ম চান্দ্র রাশিকে উপরিউক্ত চারটি গণে বিভাজন বিজ্ঞান না হোক প্রাচীন জ্যোতিষশাস্ত্র সম্মতও নয়, তার উপর শুধু মাত্র গণে না মিলিয়ে বিয়ে দিলে, পুরুষের নিধনাশঙ্কা। এমন কথা কেবল মাত্র অবৈজ্ঞানিক এবং অবাস্তবই নয় হাস্যসকর ও বটে।
বশ্যকূট্। “মিথুন, কন্যা, তুলা, কুম্ভ, ও ধনুর পূর্বা্রদ্ধ, যদি বরের রাশি হয় এবং মেষ, বৃষ, কর্কট, ইত্যাদি যদি কন্যার রাশি হয় সেই কন্যা বরের বশীভূত হয়”।
এই ভাবে কয়েকটি জন্ম চান্দ্র রাশিকে অন্য কয়েকটি জন্ম চান্দ্র রাশির বশ্য ধরা হয়ে্ছে। এবং বিপরীতে বিপরীত ফল বলা হয়েছে।
"এবং বশ্যসমাযোগে দম্পত্যোঃ প্রীতিরূত্তমা।
বশ্যাভাবেহপি দম্পত্যো্রবিবাহঃ কলহ-প্রদঃ"।।
অর্থাৎ “ কথিত নিয়মে বর ও কন্যার রাশির বশ্যাবশ্য বিচারে যদি কন্যা বরের বশ্যা হয়, তবে শুভ ও পরস্পর প্রীতিলাভ হইয়া থাকে ; অন্যথায় কলহাদি হইয়া থাকে”।।
পৃথিবীকে ঘিরে চন্দ্র তার পরিক্রমায়, বারটি রাশির এক একটিতে সোয়া দু দিন অবস্থান করে। ঐ সময়ে যত লক্ষ্য মানুষ জন্মায় তাদের সকলেরই ঐ একই জন্মরাশি হয়। অথচ কোন এক রাশিতে জন্মান মানুষ অন্য আরেক দিনে জন্মান মানুষের বশ্য হবে। এবং বিবাহের পরও সেই হিসাবে বশ্যতা চলতে থাকবে ধরে নিয়ে বিবাহের ব্যবস্থা করতে হবে।আবার কন্যা দিগকে বরের বশ্য হতেই হবে। অন্যথায় অনর্থ হবে।
মধ্যযুগীয় পুরুষ শাসিত সমাজের সমাজপতি গণের নিকট এর থেকে ভাল বিধান আর কীই বা আশা করা যায়?
কিন্তু পরম আশ্চর্যের ও পরিতাপের বিষয়, বর্তমান বিজ্ঞানের যুগেও বহু শিক্ষিত মানুষ এসব কুসংস্কারে বিশ্বাস করেন এবং এই সব তথাকথিত জ্যোতিষিক বচনের উপর নির্ভর করে নিজেদের সন্তান সন্ততি গণের বিবাহ স্থির করেন।
এবারে আসা যাক গণ কূটের কথায়। গন কূট কি? অমুকের অমুক গণ, দেব, নর না রাক্ষস? কি ভাবে জানা যাবে?
জ্যোতিষ গণনায় যে সাতাশটি নক্ষত্রকে ধরা হয়েছে, তাদেরই ঐ তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে। বর ও কন্যার জন্মনক্ষত্র থেকে গণ কূট বিচার করতে হয়।
স্বাতী, হস্তা, অনুরাধা, অশ্বিনী, ইত্যাদি নয়টি সত্ত্ব গুন বিশিষ্ট নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে দেবগন ও সত্ত্ব গুণী হয়। পূর্বফল্গুনী, পূর্বাষাড়া, পূর্বভাদ্রপদ, ইত্যাদি নয়টি নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে নর গন হয়।
জ্যেষ্ঠা, মূলা, মঘা, ইত্যাদি নয়টি নক্ষত্রে বা জন্মকালীন চন্দ্রাশ্রিত নক্ষত্রে জন্মিলে রাক্ষস গণ হয়।এতো হল গণের পরিচয়। এবারে বিচারটা কিভাবে হবে?
“স্বজাতৌ পরমা প্রীতিরমধ্যা দেব-মানুষে।
দেবাসুরে বৈরতা চ ম্রিত্যুরমানুষ-রাক্ষসে।।
রাক্ষসী চ যদা কন্যা মানুশ্চ বরো ভবেত।
তদা ম্রিত্যুরন দূরস্থো নির্ধনত্বমথাপি যা” ।।
সুতরাং দেখা যাচ্ছে যে মানুষের শিক্ষা দীক্ষা, কৃষ্টি, সংস্কৃতি, জাতিগত বা বংশগত ভাবধারার কোন মূল্য নেই। স্বাতী, হস্তা, অনুরাধা, অশ্বিনী, ইত্যাদি নক্ষত্রে জন্মালেই তার মধ্যে সত্ত্বগুণ থাকবে এবং সে দেবতুল্য মানুষ হবে। একই ভাবে জ্যেষ্ঠা, মূলা, মঘা, ইত্যাদি নক্ষত্রে জন্মালে, সেই কন্যা যতই সুশীলা হোকনা কেন, বিনা দোষে তার রাক্ষস গণ হবে।এবং তার মধ্যে তমমগুণ থাকায় দেবগণের পাত্রের সঙ্গে তার কোন মতেই বিবাহ করা চলবে না। বিয়ে হলে কি হবে? ভাল হবেনা। কলহাদি অশান্তি হবে। আর নর- রাক্ষসের বিবাহে কি হবে?
“অসুর- মনুজয়োশ্চেন্মৃত্যুমেব প্রদিষটা"।।
নরগণের পাত্রের সঙ্গে রাক্ষস গণের কন্যার বিবাহ হলে পাত্রের মৃত্যু হবে। অরথাৎ রাক্ষসী কন্যা নর পাত্রকে খেয়ে ফেলবে।
শিক্ষিত মানুষ সুস্থ মস্তিষ্কে এটা কিভাবে ভাবতে পারে?
কুসংস্কারেরও কথাও একটা সীমা থাকা উচিৎ। বিনা কারনে শুধু মাত্র কুসংস্কারের বশে প্রতিদিন কতো ভাল ভাল বিবাহের যোগ নষ্ট হচ্ছে। কথায় বলে- “পুরুষের ভাগ্যে জন ও নারীভাগ্যে ধন”।তাই অনেক পাত্র পক্ষ আবার সুলক্ষণা ভাগ্যবতী পত্রীর খোঁজ করেন যাতে সেই পত্রীর ভাগ্যযোগে তার স্বামীর আর্থিক ও বৈষয়িক উন্নতি হয়। কিন্তু জ্যোতিষের দৃষ্টিতে এই সকল চিন্তা, এমনকি তাবিজ কবজ, গ্রহরত্নাদি ধারন করে ভাগ্য ফেরানর চেষ্টা ও অধিকাংশই অন্তঃসারশুন্য। পণ্ডিত বরাহ বলেছেন যে “ মানব স্ব স্ব কর্মানুসারে সুখদুঃখ ফল ভোগ করিয়া থাকে। হিন্দু ষড়দর্শন ও বলে যে, ভাগ্য অর্থে মানবের কর্মফলভোগ বুঝায়।মানুষ যে সকল ভালোমন্দ কর্ম করিয়া থাকে তাহার ফলভোগ, এই জন্মে বা পরজন্মেই হউক, তাহাকে ভোগ করিতেই হইবে”। এই দুই শাস্ত্রের সঙ্গে সম্পর্ক রেখে চিন্তা করলে বোঝা যায় যে, কারো ভালমন্দ কর্মফল ভোগের জন্যে অন্য কেউ দায়ী হতে পারে না।ফলে যে যার কর্মফল ভোগ করে।
সুতরাং দেখা যাচ্ছে যে একই শাস্ত্রের দু দল পণ্ডিতের মধ্যে সম্পূর্ণ ভিন্ন দুই ধরনের মতবাদ প্রচলিত ছিল।এ বিষয়ে নিরপেক্ষ ভাবে কিছু বলতে গেলে, বলা যায় যে ভাগ্য বলে সত্যই যদি কিছু থেকে থাকে তা অমোঘ। তাকে কেবল মাত্র বিবাহের দ্বারা বদলান যায় না।এবং এই ধরনের চেষ্টা শুধু মাত্র অবৈজ্ঞানিক ও কুসংস্কার পূরণই নয় সমাজের পক্ষে ক্ষতিকরও বটে।






সুপ্রভাত

আপনি কি জানতে চান আপনার ভাগ্যের অনুকূল ও প্রতিকূল পরিস্থিতি গুলি কি কি??

তাহলে এখুনি আপনার জন্ম তারিখ , জন্ম সময় , জন্ম স্থান এই website www.arcsm.in গিয়ে ১০০০টাকা দিয়ে registration করুন আপনা কে সমস্ত বিষয় সম্পর্কে জানানো হবে ..ও কুন্ডলী ও প্রতিকার প ঠানো হবে।
অনলাইন ছাড়া 500টাকা
Lob Mukherjee Govt.Enrolled &Enlisted Astrologer Founder of Astro Research Centre ph 8906959633 /9593165251 Email --lobmukherjeejsmarc@gmail .com Add--Rampurhat .Harisava para.Birbhum please like and share my page --Astro Research Centre contact www.arcsm.in
My website- arcsm.in
Please visit here
For Registration check in here.
All kind of Gems Stone are Testing here
All Kind of Certified Gems and Stone available here

পাইকারী ও খুচরা মূল্যে সকল প্রকার রত্ন পাওয়া যায়
রত্ন ব্যবসায়ীরা ও জ্যোতিষ বন্ধুরা যোগাযোগ করুন

Lob Mukherjee
SBI
A/c no.30677336540
IFS Code:SBIN0000165
Branch:Rampurhat
SBI

Axis Bank
A/C No 917010026448091
Branch - Rampurhat
Branch Code --1131
IFSC Code -UTIB0001131



Blog Url:
https://arcsm.in/blog.php?blog=20190904144247