Thursday, December 12th, 2019

Astro Research Centre

নবগ্রহ, রবি সূর্য, চন্দ্র সোম, মঙ্গল ভৌম, বুধ, বৃহস্পতি গুরু, শুক্র কুব্জ, শনি, রাহু, কেতু, প্রভাব, প্রতিকার, রোগ, মন্ত্র, তন্ত্র, যন্ত্র, অবস্হান

নবগ্রহ, রবি সূর্য, চন্দ্র সোম, মঙ্গল ভৌম, বুধ, বৃহস্পতি গুরু, শুক্র কুব্জ, শনি, রাহু, কেতু, প্রভাব, প্রতিকার, রোগ, মন্ত্র, তন্ত্র, যন্ত্র, অবস্হান

নবগ্রহ, রবি সূর্য, চন্দ্র সোম, মঙ্গল ভৌম, বুধ mercury, বৃহস্পতি jupiter গুরু, শুক্র কুব্জ venus শনি saturn, রাহু, কেতু, প্রভাব, প্রতিকার, রোগ, মন্ত্র, তন্ত্র, যন্ত্র, অবস্হান

বিভিন্ন গ্রহের প্রতিকার মূল, রত্ন -পাথর, ও ধাতু দ্বারা :---

১)রবি -:-
•মূল দ্বারা-
সূর্যদেবের জন্য আফলা বেলের মূল বা বিল্ব মূল।
•ধাতু- তামা।
•রত্ন ও পাথর -
i)চুনী (Ruby) , ii) Star Ruby , iii)সারডনিক্স
IV) স্পাইনাল , v) গার্নেট।

২) চন্দ্র -:-
•মূল - ক্ষিরিকা মূল।
•ধাতু - রূপা।
•রত্ন ও পাথর -i) মুক্তা, ii)মুনস্টোন, iii)এগেট।

৩) মঙ্গল -:-
•মূল - অনন্ত মূল।
• ধাতু - তামা।
•রত্ন - প্রবাল।

৪)বুধ -:-
•মূল - বৃদ্ধদ্দারককের মূল।
•ধাতু - রূপা।
•রত্ন - পান্না।

৫) বৃহস্পতি -:-
•মূল - বামনহাটির মূল/ ব্রহ্মজৈষ্ঠীর মূল।
•ধাতু - সোনা।
রত্ন ও পাথর - I) পোখরাজ, ii) হলুদ টোপাজ।


বৃহস্পতি গ্রহের প্রতিকার >

বৃহস্পতি দেবে পুজা অর্চনা ও উপাসনা থেকে বৃহস্পতির দেওয়া পীড়া যন্ত্রণা নিবারন করা যায় , কর্মকাণ্ডী ব্রাহ্মণ দ্বারা এই কাজ করা যেতে পারে । এই জন্য শুক্লপক্ষের বৃহস্পতিবার যখন আপনার রাশি চন্দ্র থাকলে এই উপায় করা যায় । এই দিন প্রাতেঃ স্বচ্ছ পীত বস্ত্র পড়ে , পীত আসনে বসে তারপর পীত বস্ত্রের আসনে বৃহস্পতি দেব বা ভগবান বিষ্ণুর মূর্তি রেখে । সর্ব প্রথম বৃহস্পতি দেব কে আহ্বান করে এই মন্ত্র বলুন ।

ধ্যান মন্ত্র ঃ

পীতাম্বরঃ পীতবপুঃ কিরিটী চতুর্ভুজ দেবগুরু প্রশান্তঃ । যথা অক্ষসুত্রং চ কমনডুলং চ দণ্ড চ বিভদ্বরদো অস্তু ।

ওঁ ব্রিং বৃহস্পতিয়ে নমঃ

আসন সমর্পণয়ামি , পাদ্যাং সমর্পণয়ামি ,অর্ঘ সমর্পণয়ামি , আচমনীয়ং সমর্পণয়ামি , স্নানং সমর্পণয়ামি , গন্ধং সমর্পণয়ামি , দীপং দর্শনয়ামি , ধুপং দর্শনয়ামি , নৈবেদ্য সমর্পণয়ামি , আচমনয়ায়ং সমর্পনয়ামি , দক্ষিনাং সমর্পণয়ামি , নমস্কারভি ।

তান্ত্রিক মন্ত্র ঃ

ওঁ গ্রাং গ্রীং গ্রৌং স গুরুবে নমঃ

গায়ত্রী মন্ত্র ঃ

ওঁ আংগিরসায় বিদ্মহে দিব্যদেহায় ধীমহি তন্ন জীব প্রচদয়াত ।

প্রার্থনা মন্ত্র ঃ

দেবমন্ত্রী বিশালাক্ষঃ সদা লোকহিতেরতঃ ,অনেক শিষৈঃ সমপ্রনঃ পীড়াং দহতু মে গুরু ।

নমস্কার মন্ত্র ঃ

দেবানাং চ ঋষিনাং চ গুরুকাঞ্চন সন্নিভাম । বুদ্ধিভুতং ত্রিলকেশং তং নমামি বৃহস্পতিম ।

৬) শুক্র -:-
•মূল - রামবাসকের মূল।
•ধাতু - প্লাটিনাম।
•রত্ন ও পাথর - I) হীরা, ii) জারকোন্, iii) ওপাল।

৭)শনিদেব -:-
•মূল - শ্বেতবেড়ালার মূল।
•ধাতু - লোহা।
•রত্ন ও পাথর - I) নীলা, ii) এমিথিস্ট, iii) নীল টোপাজ, IV) তানজানাইট।

৮) রাহু -:-
•মূল - শ্বেত চন্দনের মূল।
•ধাতু - i) লোহা , ii) স্টীল।
•রত্ন - গোমেদ।

৯)কেতু -:-
•মূল - অশ্ব গন্ধার মূল।
•ধাতু - স্টীল।
•রত্ন - I) ক‍্যাটস্ আই, ii) টাইগার আই।



রবিবার হল নবগ্রহের প্রধান গ্রহ রবির জন্য নির্দিষ্ট দিন। এইদিন তো বটেই, অন্যান্য দিনেও সূর্যের উপাসনা করলে জীবনে প্রভূত উন্নতির সম্ভাবনা।
নবগ্রহের মধ্যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হল রবি অথবা সূর্য। ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী রবি-র অবস্থান যদি ঠিক না হয়, তবে হাজার পরিশ্রমেও জাতকের জীবনে উন্নতি করা কঠিন হয়ে পড়ে। যশ, খ্যাতি ইত্যাদি কোনও কিছুই আসে না। রবি সু-অবস্থানে থাকলে পেশাগত জীবনে প্রভূত উন্নতির সম্ভাবনা থাকে, তাই যাঁদের কুণ্ডলীতে রবি ভাল অবস্থানে থাকে না তাঁরা নানা ধরনের মানসিক অশান্তি এবং নেতিবাচক মনোভাবের শিকার হন। এছাড়া জীবনে তাঁদের অন্যদের হাতে বঞ্চিত ও লাঞ্ছিত হতে হয়।

হিন্দুশাস্ত্র মতে, এই ৬টি আচার পালন করলে অত্যন্ত প্রসন্ন হন সূর্যদেব—

১. প্রতিদিন সকালে সূর্যোদয়ের আগে স্নান করে শুদ্ধ হয়ে সূর্যপ্রণাম করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সূর্যপ্রণাম যোগাভ্যাস করা সকলের পক্ষে সম্ভব নয়। তা সম্ভব না হলেও সূর্যমন্ত্র উচ্চারণ করতে করতে গঙ্গাজল বা পরিস্রুত জল সূর্যদেবতাকে নিবেদন করলে তা মঙ্গল।
২. গুড় সূর্যদেবতার প্রিয় তাই প্রতিদিন সকালে সূর্য উপাসনার সময় গুড় প্রসাদ হিসেবে গ্রহণ করলে এবং ক্ষুধার্ত বা দরিদ্র মানুষকে রবিবার দিন গুড় ও ছোলাভাজা দান করলে প্রসন্ন হন সূর্যদেব।

৩. এছাড়া মহাদেবের উপাসনার সময়েও লাল ফুল (জবা নয়) দিয়ে তাঁর পুজো করলে ভাল।
৪. রবিবার দিন উপোস করলেও সন্তুষ্ট হন সূর্যদেব।

৫. যে কোনও একটি রবিবার দরিদ্রকে লাল কাপড় দান করলে জীবনে রবির সুপ্রভাব বৃদ্ধি পায় ও কুপ্রভাব কাটতে থাকে। লাল হল সূর্যের পছন্দের রং।

৬. সূর্যদেব দান-ধ্যান পছন্দ করেন। তাই যে কোনও রবিবার সাধ্যের মধ্যে তামা অথবা স্বর্ণ দান করলে অত্যন্ত প্রসন্ন হন সূর্য।
৭)সূর্যের বীজ মন্ত্র : ঔঁ হ্রীং হ্রীং সূর্যায়
১০০বার সকাল ৬.০৪ মিঃ এ পূর্ব দিকে মুখ করে সূর্য দেব কে দেখে জপ করবে‌

জ্যোতিষশাস্ত্রের মতে, পারিবারিক ও আর্থিক বিষয় ছাড়াও শারীরিক ক্ষেত্রেও প্রভাব ফেলে ৯টি গ্রহ৷ রবি থেকে কেতু, এই ৯টি গ্রহ শরীরের বিশেষ বিশেষ অংশে প্রভাব ফেলে৷

আসুন জেনে নেওয়া যাক শরীরের কোন অঙ্গে কোন গ্রহ প্রভাব ফেলে৷১. রবি: এই গ্রহের স্থান মাথা ও মুখ৷ রবি বিরুদ্ধ হলে মাথা ও মুখের কোনও অংশে অসুখ হতে পারে৷ মুখে বা মাথায় আঘাত লাগতে পারে৷ যদি রবি অনুকূলে থাকে তাহলে মাথা বা মুখের কোনও অংশে অসুখ হলে বা আঘাত লাগলে, তা তাড়াতাড়ি সেড়ে যায়৷

২. চন্দ্র: এই গ্রহের স্থান গলা ও বুক৷ চন্দ্র বিরুদ্ধ হলে সবসময় সর্দিকাশি, হাঁপানি, শ্বাসকষ্ট, ফুসফুসের কোনও অসুখ,হৃদরোগ এমনকি যক্ষাও হতে পারে৷ চন্দ্র অনুকূলে থাকলে শ্লেষ্মাজাতীয় অসুখ বা হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনা প্রায় নেই৷

৩. মঙ্গল: এই গ্রহের স্থান পেট ও পিঠ৷তাই মঙ্গল বিরুদ্ধ থাকলে পেটের ও পিঠের কোনও স্থানে অসুখ হতে পারে৷শিরদাঁড়ায় আঘাত লাগা, হাড় ভাঙা, শিরা ছিঁড়ে যাওয়া, অযথা অতিরিক্ত রক্তপাত, রক্তদূষন, রক্তশূন্যতা, আগুনে পুড়ে যাওয়া, যে কোনও ধরনের অস্ত্রপ্রচার হতে পারে৷মঙ্গল শুভ ফলদায়ক হলে এই ধরনের আঘাত লাগা বা দুর্ঘটনা থেকে দূরে থাকা যায়৷

৪. শনি: এই গ্রহের স্থান পা৷তাই শনি বিরুদ্ধ  থাকলে পায়ে আঘাত লাগা, ব্যাথা বেদনা, রক্তপাত, দুর্ঘটনায় পা পর্যন্ত বাদ যেতে পারে৷এছাড়া শিরা-উপশিরা সংক্রান্ত সমস্যাও দেখা দিতে পারে৷

৫. রাহু : রাহুর বিরুদ্ধতায় রবি, চন্দ্র, মঙ্গল, শনি প্রভৃতির মতো সবরকম কষ্টভোগ করতে মানুষ বাধ্য হন৷

৬. কেতু: এই গ্রহের স্থান ত্বক৷তাই কেতু বিরুদ্ধ থাকলে নানারকম চর্মরোগ হতে পারে৷

৭.  বুধ, বৃহস্পতি, শুক্র মানুষের মন, কানন, চিত্ত, বুদ্ধিতে আধিপত্য করে থাকে৷তাই এইসব গ্রহ বিরুদ্ধ হলে মনের অস্থিরতা, চিত্ত চাঞ্চল্য, বুদ্ধিভ্রংশ হতে পারে৷এইসব গ্রহ শুভ ফলদায়ক হলে মানসিক শক্তি, বুদ্ধি, ধৈর্য্য,সহ্য বৃদ্ধি পায়৷

৮. অশুভ কেতু ও মঙ্গলের যোগ হলে দুরারোগ্য ব্যাধি, দুষ্টক্ষত এমনকি ক্যান্সারও হতে পারে৷

৯. অশুভ কেতু ও মঙ্গল যোগে পিত্তঘটিত রোগের আশঙ্কা থাকে৷

গ্রহ দোষ নিবারণ, উপায়, প্রতিবিধান, নবগ্রহ হোম, কবচ, নবগ্রহ য্ন্ত্রম না করে নিয়ম গুলি মানুন

রবি বা সূর্যের কুপ্রভাব থেকে মুক্তি পেতে হলে প্রতিদিন সকালে কয়েক মিনিট সূর্যর আলোয় দাঁড়াতে হবে। রোদ আসে এমন ঘরে আহার করা বাঞ্ছনীয়। সূর্যাস্তের পরে যতটা কম পরিমাণ আহার করা যায়, ততই মঙ্গল। তামার পাত্রে জল পান বিধেয়। ধাতুর ব্যবহার এড়িয়ে চলতে হবে।

• চন্দ্রদোষ কাটাতে প্রথমেই শীতল খাবারকে পরিহার করতে হবে। বেশি পরিমাণে ফল ও স্যালাড খাওয়া প্রয়োজন। জলকে সমীহ করতে হবে। কোনও নদীতে নামার আগে তার জল মাথায় ছিটিয়ে নামতে হবে।

• মঙ্গলের কোপ এড়াতে বেশ কিছুদিন মাটিতে শোওয়া অভ্যাস করতে হবে। সপ্তাহখানেক নুন না খেলে ভাল ফল পাওয়া যায়। ‘হনুমান চল্লিশা’ পাঠ করলে ভাল ফল পাওয়া যায়।

• বুধ কুপিত হলে খাবারে যতটা সম্ভব সবুজ আমদানি করুন। রাসায়নিক-সমৃদ্ধ রূপটান এড়িয়ে চলুন। ধীর ও উদাত্ত সঙ্গীত শ্রবণ উপকারে আসবে। রোজ স্নান করা বাঞ্ছনীয়।

• বৃহস্পতির উষ্মা থেকে রেহাই পেতে ম‌াংস খাওয়া ছাড়তে হবে। খাবারে হলুদের পরিমাণ বাড়ালে ভাল হয়। লম্বা চুল পরিহার করতে হবে।

• শুক্রের বিরূপ দশা কাটাতে সুগন্ধীযুক্ত জলে স্নান করা বিধেয়। পরিচ্ছন্ন থাকতে হবে সব সময়ে। নিয়েমিত দই খেলে শুভ। লম্বা চুল ও গোঁফ রাখা বিপজ্জনক।

• শনির দশা কাটাতে হনুমানের পূজা জরুরি। তা ছাড়া, শনি মন্দিরে প্রতি শনিবার যাওয়া দরকার।

• রাহু ও কেতুর কোপ রুখতে আর্তের সেবা বিশেষ জরুরি। দরিদ্র মানুষের চিকিৎসায় ব্যয় করলে ফল পাওয়া যায়। তুলসী-সেবাও কাজে দেয়। বাইরের খাবার খাওয়া ছাড়তে হবে।
Graha, Nabagraha, Rashi, Nakhatra, Rashifol, planets, stars
RABI, CHANDRA, Mangal, Budh, Brihaspati, Sukra, shni, sani, Rahu Ketu,
গ্রহ ইংরেজি স্বক্ষেত্র

রবি Sun সিংহ
চন্দ্র Moon কর্কট
মঙ্গল Mars মেষ, বৃশ্চিক
বুধ Mercury মিথুন, কন্যা
বৃহস্পতি Jupiter ধনু, মীন
শুক্র Venus বৃষ, তুলা
শনি Saturn মকর, কুম্ভ
রাহু Rahu নাই
কেতু Ketu নাই
গ্রহ ইংরেজি তুঙ্গী ক্ষেত্র বা উচ্চ স্হান

রবি Sun মেষ 10ডি
চন্দ্র Moon বৃষ 3 ডি
মঙ্গল Mars মকর 28 ডি
বুধ Mercury কন্যা 15 ডি
বৃহস্পতি Jupiter কর্কট 5ডি
শুক্র Venus মীন 27ডি
শনি Saturn তুলা 20 ডি
রাহু Rahu বৃষ 20 ডি
কেতু Ketu বৃশ্চিক 20 ডি



Lob Mukherjee Govt.Enrolled &Enlisted Astrologer Founder of Astro Research Centre ph 8906959633 /9593165251 Email --lobmukherjeejsmarc@gmail .com Add--Rampurhat .Harisava para.Birbhum please like and share my page --Astro Research Centre contact wwwarcsm.in



Blog Url:
https://arcsm.in/blog.php?blog=20191212214205